সোমবার, ফেব্রুয়ারি ৬Dedicate To Right News
Shadow

ভিন্নভাবে সক্ষম নারীদের ই-কমার্স প্লাটফর্মে যুক্ত করতে দারাজের উদ্যোগ

Spread the love

ভিন্নভাবে সক্ষম নারী উদ্যোক্তাদের ই-কমার্স প্ল্যাটফর্মে অন্তর্ভুক্তির লক্ষ্যে সম্প্রতি অ্যাকসেস বাংলাদেশ ফাউন্ডেশন আয়োজিত প্রশিক্ষণ কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ করেছে দারাজ। যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাসের ইএমকে সেন্টারের সহযোগিতায় সম্প্রতি আয়োজিত এ প্রশিক্ষণ কর্মসূচিতে দেশের সাতটি বিভাগের ১৭টি জেলার বাছাইকৃত ৫০ জন্য ভিন্নভাবে সক্ষম নারী উদ্যোক্তাদের দু’টি ব্যাচে তিন দিনব্যাপী এ প্রশিক্ষণ কর্মসূচিতে অংশ নেয়ার জন্য নির্বাচিত করা হয়।
অনুষ্ঠানে দারাজ, একশপ ও উই – এ কীভাবে ভিন্নভাবে সক্ষম নারী উদ্যোক্তারা যুক্ত হতে পারেন সে বিষয়ে নিজেদের ধারণা উপস্থাপন করেন দারাজ বাংলাদেশের সিনিয়র ম্যানেজার আহসান জামিল, সিনিয়র এক্সিকিউটিভ মাসিউর রহমান, সিএসআর অ্যান্ড সাসটেইনেবল ডেভেলপমেন্ট করপোরেট অ্যাফেয়ার্স ও এক্সিকিউটিভ অ্যাকুইজিশন – মো. ইব্রাহিম খলিল ঢালী; এটুআই’র ইফফাত জাহান পিথিয়া; এবং উই’র ওয়ার্কিং কমিটি ডিরেক্টর ডা. সালমা পারভীন।

প্রথম ব্যাচের প্রশিক্ষণের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ইউনিভার্সিটি অব লিবারেল আর্টস বাংলাদেশের উপাচার্য এবং ইউল্যাব স্কুল অব বিজনেসের ডিন অধ্যাপক ইমরান রহমান এবং বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মানুষের জন্য ফাউন্ডেশনের নির্বাহী পরিচালক শাহীন আনাম।

দ্বিতীয় ব্যাচের প্রশিক্ষণের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন এটুআই’র হেড অব সোশ্যাল ইনোভেশন অ্যান্ড অপারেশন ক্লাস্টার মানিক মাহমুদ এবং বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উই -এর প্রতিষ্ঠাতা ও সভাপতি নাসিমা আক্তার নিশা।
এই উপলক্ষ্যে দারাজ বাংলাদেশের সিএসআর অ্যান্ড সাসটেইনেবিলিটি বিভাগের সিনিয়র ম্যানেজার আহসান জামিল বলেন, “দারাজ সবসময় কমিউনিটিকে সাথে নিয়ে এগিয়ে যাওয়ায় বিশ্বাসী। এ ধরণের উদ্যোগের অংশ হতে পেরে আমরা গর্বিত। আমাদের প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করার জন্য সারা দেশ থেকে ৫০ জন নারী প্রশিক্ষণ নিয়েছেন। এই প্রশিক্ষণের মাধ্যমে তারা তীব্র প্রতিযোগিতাপূর্ণ ই-কমার্স ব্যবসায় টিকে থাকতে সক্ষম হবেন এবং ই-কমার্স ইকোসিস্টেমকে ধারণ করতে পারবেন। আমরা আশাবাদী আমাদের অংশীদারদের সাথে গ্রহণ করা এই উদ্যোগ কেবলমাত্র নারীদের জন্য সুযোগ বয়ে নিয়ে আসবে না; বরং সকল ভিন্নভাবে সক্ষম ব্যক্তির জন্য সুযোগ নিয়ে আসবে, যারা আত্মনির্ভরশীল হতে চান এবং তাদের উদ্যোগকে সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে যেতে চান। এই প্রকল্পের অংশ হতে পেরে আমরা সত্যিই অনেক আনন্দিত। ভবিষ্যতে আমরা অবশ্যই এ ধরণের চমৎকার উদ্যোগের পাশে থাকার চেষ্টা করব।”

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *