সোমবার, ফেব্রুয়ারি ৬Dedicate To Right News
Shadow

তামাক নিয়ন্ত্রণ আইনের সংশোধিত খসড়া দ্রুত পাশ করার তাগিদ গণমাধ্যমকর্মীদের

Spread the love

সম্প্রতি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় তামাক নিয়ন্ত্রণ আইনের অধিকতর সংশোধনীর জন্য একটি খসড়া প্রণয়ন করেছে। আইন সংশোধনের এই খসড়া দ্রুত পাশ করার পক্ষে মতামত জানিয়েছেন দেশের শীর্ষস্থানীয় গণমাধ্যমকর্মীরা।
৭ সেপ্টেম্বর দুপুর ১২টায় গণমাধ্যমকর্মীদের সঙ্গে ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশনের এক মতবিনিময় সভায় গণমাধ্যমকর্মীরা এ মন্তব্য করেন। ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশনের স্বাস্থ্য ও ওয়াশ সেক্টরের পরিচালক ইকবাল মাসুদের সভাপতিত্বে সভায় বক্তব্য রাখেন ক্যাম্পেইন ফর টোবাকো ফ্রি কিডস বাংলাদেশের গ্র্যান্টস ম্যানেজার আবদুস সালাম মিয়া ও সিনিয়র পলিসি এ্যাডভাইজার মোঃ আতাউর রহমান মাসুদ। এসময় গণমাধ্যমকর্মীদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশনের উপ-পরিচালক মোঃ মোখলেছুর রহমান। ঢাকা আহ্ছানিয়া মিশনের তামাক নিয়ন্ত্রণ প্রকল্পের মিডিয়া ম্যানেজার রেজাউর রহমান রিজভীর সঞ্চালনায় সভায় মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন প্রকল্প সমন্বয়কারী মোঃ শরিফুল ইসলাম।
মতবিনিময় সভায় জানানো হয় যে, বর্তমান ‘ধূমপান ও তামাকজাত দ্রব্য ব্যবহার (নিয়ন্ত্রণ) আইন ২০০৫’ আইনে পাবলিক প্লেস, রেস্তোরাঁ ও গণপরিবহনে ধুমপানের সুযোগ থাকার কারণে পরোক্ষ ধুমপানজনিত ক্ষতির শিকার হচ্ছেন অধূমপায়ী নাগরিকগণ। এটা স্বাস্থ্যের জন্য মারাত্মক হুমকিস্বরূপ। অন্যদিকে বিদ্যমান আইনে তামাকজাত দ্রব্যের বিজ্ঞাপন ও প্রচারণা পুরোপুরি নিষেধ। তবে বিক্রয়কেন্দ্রে তামাকজাত পণ্যের প্রদর্শনী বন্ধে সুনির্দিষ্ট কোন নিষেধাজ্ঞা নেই। আর এ সুযোগে তামাক কোম্পানীগুলো বিক্রয়কেন্দ্রে তাদের পণ্যের প্রদর্শনীর মাধ্যমে তামাকজাত দ্রব্যের বিজ্ঞাপন ও প্রচারণা করছে। এজন্য সম্প্রতি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় তামাক নিয়ন্ত্রণ আইনের অধিকতর সংশোনীর জন্য একটি খসড়া প্রণয়ন করেছে। এই খসড়াটি অনুমোদন পেলে পাবলিক প্লেস ও গণপরিবহনে ধূমান এলাকা বাতিল, বিক্রয়কেন্দ্রে তামাকজাত দ্রব্যের প্রদর্শনী, খুচরা বিক্রি, ই-সিগারেট ও তামাক কোম্পানীর সিএসআর বন্ধসহ তামাক নিয়ন্ত্রণ আইনের বেশ কিছু দুর্বল দিক অনেকাংশেই দূর হবে এবং আমরা শক্তিশালী একটা তামাক নিয়ন্ত্রণ আইন পাবো।
এসময় ইকবাল মাসুদ বলেন, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় তামাক নিয়ন্ত্রণ আইনের অধিকতর সংশোনীর জন্য যে খসড়াটি প্রণয়ন করেছে, সেটি পাশ হলে দেশে তামাক সেবনকারীদের সংখ্যা হ্রাস পাবে। ফলে ২০৪০ সালের মধ্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঘোষিত তামাক মুক্ত বাংলাদেশ হওয়া সম্ভব হবে।
মোঃ আতাউর রহমান মাসুদ বলেন, গণমাধ্যমকর্মীদের একটি বড় ভূমিকা রয়েছে সংশোধিত আইনটি পাশ করার পেছনে। তারা তাদের লেখনির মাধ্যমে সরকারের একজন পলিসি মেকারকেও যদি মোবিলাইজড করতে পারে তবে সেটিও অনেক বড় কাজ হবে।
আবদুস সালাম মিয়া বলেন, গণমাধ্যমকর্মীরা সমাজের দর্পণ। তারা যদি জোড়ালো ভূমিকা রাখে তবে সংশোধিত তামাক নিয়ন্ত্রণ আইনের খসড়াটি সরকার দ্রুতই পাশ করবে বলে আশা করছি। আইন সংশোধনের মূল লক্ষ্য হচ্ছে তামাকের ব্যবহার কমানো, অধূমপায়ী শিশু কিশোরদের ধূমপান শুরু করায় বাধা সৃষ্টি করা এবং অধূমপায়ীদের ধূমপানমুক্ত পরিবেশ নিশ্চিত করার মাধ্যমে পরোক্ষ ধূমপানের মারাত্মক ক্ষতি থেকে রক্ষা করা।

সভায় গণমাধ্যমকর্মীদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ডেইলি স্টারের রাশিদুল হাসান, ইত্তেফাকের আহমেদ তোফায়েল, অবজারভারের ফারহানা নাজনীন, যায় যায় দিনের আলতাব হোসেন, বাংলাদেশ টেলিভিশনের শফিউল্লাহ সুমন, জনকণ্ঠের রহিম শেখ, ভোরের কাগজের মরিয়ম সেঁজুতি, বণিক বার্তার মো. মঞ্জুরুল ইসলাম, বাংলাদেশ পোস্টের আহমদ পারভেজ খান, আনোয়ার হোসেন, মানবকণ্ঠের মনির জারিফ, চ্যানেল টি-ওয়ানের শরীফ রিমন প্রমুখ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *