রবিবার, মে ১৯Dedicate To Right News
Shadow

ব্রিটিশ পাথে’র সঙ্গে ফিল্ম আর্কাইভের সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর

Spread the love

মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতার ঘোষণার ফুটেজ সংগ্রহ ও সংরক্ষণের জন্য বাংলাদেশ ফিল্ম আর্কাইভ ব্রিটিশ পাথে-এর সঙ্গে সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর করেছে।

বাংলাদেশ ফিল্ম আর্কাইভ আজ মুক্তিযুদ্ধের ঐতিহাসিক ফুটেজ সংগ্রহ ও সংরক্ষণের জন্য এবং জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বাধীনতা ঘোষণার পাশাপাশি বাংলাদেশ ফিল্ম আর্কাইভকে শক্তিশালী করতে ব্রিটিশ পাথে-এর সাথে একটি সমঝোতা স্মারক (এমওইউ) স্বাক্ষর করেছে।
বাংলাদেশের তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।
বাংলাদেশ ফিল্ম আর্কাইভ এর “ দেশী- বিদেশী উৎস থেকে মুক্তিযুদ্ধের ফুটেজ সংগ্রহ ও সংরক্ষণ এবং বাংলাদেশ ফিল্ম আর্কাইভ শক্তিশালীকরণ” শীর্ষক একটি বিশেষ প্রকল্পের অধীনে ব্রিটিশ পাথে থেকে মোট 156টি ফুটেজ সংগ্রহ করবে। ১৯৭১ এ স্বাধীনতা যুদ্ধ এবং বাংলাদেশ ও বাঙালি জাতিকে নিয়মতান্ত্রিক নিপীড়ন থেকে মুক্ত করার জন্য বঙ্গবন্ধুর 23 বছরেরও বেশি সময়ের সংগ্রামের মানসম্পন্ন ফুটেজ সংগ্রহ ও অবাণিজ্যিক ব্যবহার করা হবে সংগ্রহীত তথ্যাদি।
বাংলাদেশ ফিল্ম আর্কাইভের প্রকল্প পরিচালক ড. মোঃ মোফাকখারুল ইকবাল এবং ব্রিটিশ পাথে এর প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা অ্যালিস্টার হোয়াইট তাদের পক্ষে নথিতে স্বাক্ষর করেন।
অনুষ্ঠানে ড. হাছান মাহমুদ বলেন, “বিশ্বের অন্যতম সেরা আর্কাইভ ‘বৃটিশ পাথে’ থেকে সংগ্রহকৃত ঐতিহাসিক ফুটেজ অবশ্যই আমাদের জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বাংলাদেশের স্বাধীনতা ঘোষণা এবং ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের প্রকৃত ইতিহাস সংগ্রহ ও সংরক্ষণ করতে সক্ষম করবে যা, ১৯৭১ সালে বঙ্গবন্ধুকে নির্মমভাবে হত্যার পর ধ্বংস করা হয়।
মন্ত্রী আশা প্রকাশ করেন যে, আমাদের ঐতিহাসিক অডিও-ভিজ্যুয়াল নথিগুলোকে আরও সমৃদ্ধ করতে বাংলাদেশ ফিল্ম আর্কাইভ এবং ব্রিটিশ পাথে-এর মধ্যে দ্বিপাক্ষিক সহযোগিতা ভবিষ্যতেও অব্যাহত থাকবে।
অনুষ্ঠানে, অ্যালিস্টার হোয়াইট (ব্রিটিশ পথের সিইও) বলেন, “ড. হাসান মাহমুদের সহায়তায় আমরা বাংলাদেশ সরকারকে 156টি ঐতিহাসিক ফুটেজ প্রদানের ব্যবস্থা করেছি। তিনি বলেন, আমরা বাংলাদেশ ফিল্ম আর্কাইভের ডঃ মোঃ মোফাকখারুল ইকবাল এবং তার দলের কাছে অত্যন্ত কৃতজ্ঞ আমাদেরকে সবচেয়ে বড় এবং সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ প্রকল্পগুলির মধ্যে একটিতে অংশগ্রহণ করার জন্য আমন্ত্রণ জানানোর জন্য। আমরা আশা করি যে, আমাদের দেওয়া ফুটেজসমূহ মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস সংরক্ষণ এবং বাংলাদেশের জনগণকে সম্মান করার গুরুত্বপূর্ণ প্রচেষ্টায় সহায়তা করবে।”
আশেকুন নবী চৌধুরী, মন্ত্রী (প্রেস), নাসরিন মুক্তি, মন্ত্রী (রাজনৈতিক) এবং মাহফুজা সুলতানা, বাংলাদেশ হাইকমিশন, লন্ডনের কাউন্সেলর এবং চ্যান্সারি প্রধান, বাংলাদেশ ফিল্ম আর্কাইভের সহকারী পরিচালক মোঃ মনিরুজ্জামান এবং ব্রিটিশ পাথের কনটেন্ট ম্যানেজার জেমস হোয়েল। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *