রবিবার, মে ১৯Dedicate To Right News
Shadow

জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবস উপলক্ষে ইউল্যাবে আলোচনা অনুষ্ঠান

Spread the love

গত ২৪ অক্টোবর জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবস উপলক্ষে ইউনিভার্সিটি অব লিবারেল আর্টস বাংলাদেশ (ইউল্যাব) এক ভার্চুয়াল আলোচনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন একুশে পদকপ্রাপ্ত সামাজিক সংগঠক, নিরাপদ সড়ক চাই (নিসচা)’র চেয়ারম্যান, চিত্রনায়ক ইলিয়াস কাঞ্চন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে ইলিয়াস কাঞ্চন বলেন, দেশের পরিবহন ব্যবস্থাপনায় বিশৃংখল অবস্থা বিরাজ করছে। সরকার আন্তরিকতার সাথে নীতিমালা উন্নয়ন করলেই কেবল এই পরিস্থিতির উন্নতি সম্ভব। তিনি বলেন, শুধুমাত্র সরকারের ঘাড়ে দায় চাপিয়ে দিলেই হলো না, আমাদের নিজেদেরও সচেতন হওয়া জরুরী। কিন্তু বাস্তব অর্থে, সড়কে নব্বই শতাংশ মানুষই সড়ক আইন মানতে চায় না।

স্বাগত বক্তব্যে ইউল্যাবের ভারপ্রাপ্ত উপাচার্য অধ্যাপক ড. সামসাদ মর্তূজা সড়ক দূর্ঘটনা বিষয়ে একটি পরিসংখ্যান তুলে ধরেন। তিনি বলেন, দেশে প্রতিদিন প্রায় ২০ জন করে মানুষ সড়ক দূর্ঘটনায় হতাহত হয়। তিনি জানান, টেকসই উন্নয়নের ৩.৬ লক্ষ্যে নিরাপদ সড়কের কথা বলা আছে। ইউল্যাব যেহেতু বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে টেকসই উন্ননের মিলেনিয়াম গোলের সাথে ঐক্যমতে থেকে টেকসই বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করতে সচেষ্ট, সেক্ষেত্রে নিরাপদ সড়ক বিষয়ে শিক্ষার্থীদের সচেতন করতে এ বিশ্ববিদ্যালয়ের দায়বদ্ধতা রয়েছে বলে তিনি জানান।

সমাপনী বক্তব্যে ইউল্যাব বোর্ড অব ট্রাস্টিজের বিশেষ উপদেষ্টা অধ্যাপক ইমরান রহমান ব্যক্তিগত ট্র্যাজেডিকে সামাজিক আন্দোলনে রূপদান করে দেশের নাগরিকদের সচেতন করতে ইলিয়াস কাঞ্চনের সামগ্রিক প্রচেষ্টার ভূয়সী প্রশংসা করেন। তিনি সড়কে নিজের নিরাপত্তার দায়িত্ব নিজেকে নিতে, আইন শাসনের প্রতি সম্মত থাকতে, অন্যের জন্য বিবেচনা রাখতে এবং ধৈর্যশীল হতে শিক্ষার্থীদের পরামর্শ দেন।

সড়ক দূর্ঘটনার শিকার ইউল্যাবের ইলেক্ট্রনিক এন্ড টেলিকমিউনিকেশন ইঞ্জিনিয়ারিং (ইটিই)’র ১৪২ তম ব্যাচের শিক্ষার্থী রিয়াজ বিন রাজিব অনুষ্ঠানে নিজের দূর্বিষহ অভিজ্ঞতার কথা তুলে ধরেন। জাতীয় নিরাপদ সড়ক দিবস উপলক্ষে ইউল্যাবের সোশ্যাল ওয়েলফেয়ার ক্লাব সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সপ্তাহব্যাপী পোস্টার ক্যাম্পেইন এবং সচেতনতা মূলক ভিডিও প্রচার করে।

অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে ট্রেজারার অধ্যাপক মিলন কুমার ভট্টাচার্য, রেজিস্ট্রার লে কর্নেল ফয়জুল ইসলাম (অব.), অনুষদের ডিনবৃন্দ, বিভাগীয় প্রধানগণ, শিক্ষক-কর্মকর্তা, বর্তমান ও সাবেক শিক্ষার্থীরা অনলাইনের মাধ্যমে সংযুক্ত ছিলেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *