শনিবার, এপ্রিল ১৩Dedicate To Right News
Shadow

ছাত্রী হেনস্তার প্রতিবাদে মানববন্ধন ও নিরাপদ ক্যাম্পাসের দাবিতে স্মারকলিপি প্রদান

Spread the love
  • জাবি প্রতিনিধি

১১ জুন রাতে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ছাত্রীকে হেনস্তার প্রতিবাদে জাবি শহীদ মিনার প্রাঙ্গণে ১২ জুন দুপুরে মানববন্ধন করেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থীরা। এসময় ক্যাম্পাসে নিরাপত্তা নিশ্চিত করার সহ ছয় দফা দাবি নিয়ে স্মারকলিপি প্রদান করেন তারা।

জানা যায়, গত ১১ জুন রাতে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসের বোটানিক্যাল গার্ডেন সংলগ্ন রাস্তায় অবৈধ ওয়াকিটকি ও হ্যান্ডকাফ সমেত বহিরাগত দুইজন ( এরমধ্যে একজন পুলিশ কনস্টেবল) দ্বারা বিশ্ববিদ্যালয়ের ৫১তম আবর্তনের এক নারী শিক্ষার্থী যৌন হেনস্তার শিকার হয়। ঘটনার পরে সেই নারী শিক্ষার্থী মানসিক ভাবে ভেঙে পড়েন এবং সাধারণ শিক্ষার্থীদের মধ্যে ক্যাম্পাসে নিরাপত্তা নিয়ে প্রশ্ন ওঠে।

মানববন্ধনে দাবি শিক্ষার্থীরা ছয় দফা জাবি জানিয়েছেন। দাবিগুলো হলো-ঘটনা পরবর্তী আইনি পদক্ষেপ যথাযথ ভাবে হচ্ছে কিনা তার তদারকি করা, ঘটনায় হালনাগাদ তথ্য নিয়মিত ভাবে শিক্ষার্থীদের জানানো, ক্যাম্পাসে বহিরাগতদের প্রবেশ ও চলাচল নিয়ন্ত্রণে পদক্ষেপ গ্রহণ, ক্যাম্পাসে মূল সড়কগুলোতে সিসিটিভি স্থাপন ও প্রয়োজনীয় সংখ্যক নিরাপত্তা কর্মী নিয়োজিত করা, অন্ধকারাচ্ছন্ন সড়কগুলোতে রাত্রিকালীন পর্যাপ্ত আলোর ব্যাবস্থা করাসহ পর্যাপ্ত যানবাহন নিশ্চিত করে ক্যাম্পাসে যাতায়াত নিরাপদ করা।

মানববন্ধনে নাটক ও নাট্য বিভাগের ৫১ তম আবর্তনের শিক্ষার্থী ফজলে রাব্বি বক্তব্যে বলেন; “স্বাধীন দেশে ও স্বাধীন ক্যাম্পাসে থেকেও এসব সমস্যা নিয়ে কথা বলতে হচ্ছে এর জন্য লজ্জা হচ্ছে, এর সুস্থ বিচার দাবি করছি ও অন্যান্য দাবিগুলোর বাস্তবায়নের জন্য তাগাদা দিচ্ছি । যদি প্রসাশন দাবিগুলো দ্রুত বাস্তবায়ন না করে, তাহলে আমরা তাই করবো যা ১৯৫২ সালে অথবা ১৯৭১ সালে শিক্ষার্থীরা করেছিল। তাই এই দাবিগুলো মেনে ক্যাম্পাসকে নিরাপদ ক্যাম্পাসে পরিণত করতে হবে।”

ভূগল ও পরিবেশ বিভাগের ৫০তম আবর্তনের শিক্ষার্থী বেদত্রয়ী গোস্বামী পৃথা বলেন; ” একটি আবাসিক বিশ্ববিদ্যালয় যেখানে মাবাবা চোখ বন্ধ করে আমাদের রেখে গেছে, আমি এমন একটি বিশ্ববিদ্যালয় চাই যেখানে জনবহুল জায়গার মতো আমরা নিরাপত্তা পাবো। আমরা চাই যেন এই বিচারটি দৃষ্টান্তমূলক হয়, যেন পরে অন্য কেউ এমন অপরাধ করতে হাজারবার ভাবে, আমাদের পরে যেন আবার এমন মানববন্ধনে না দাড়াতে হয়।”

ইংরেজী বিভাগের ৪৯ তম আবর্তনের শিক্ষার্থী পূর্ণতা রহমান তৌসি বলেন, “আগেও বারংবার আমরা এমন কিছু দেখেছি, প্রশাসন নিশ্চুপ বলে তারা এমন সব অপরাধ করার সাহস পায়। এটা একটি আবাসিক বিশ্ববিদ্যালয়, আমরা নিরাপত্তার জন্য এখানে অবশ্যই প্রশাসনের কাছেই যাবো। মূল সড়কগুলোতে সিসিটিভি বসাতে হবে ও পর্যাপ্ত আলোর ব্যবস্থা করতে হবে। পরবর্তী এই আসামির বিরুদ্ধে নেয়া পদক্ষেপগুলো আমাদেরকে জানাতে হবে। এর আগেও নারী শিক্ষার্থীদের সাথেও ছিনতাই ও হেনস্তার ঘটনা ঘটেছে। এর জন্য প্রশাসনকে সুনিশ্চিত পদক্ষেপ নিতে হবে।”

সোহেল হাসান গালিবের সঞ্চালনায় মানববন্ধন করার পরপরই শিক্ষার্থীরা নতুন রেজিস্ট্রার ভবনে উপাচার্যের কাছে তাদের সকল দাবি সম্বলিত স্মারকলিপি প্রদান করেন এবং উপাচার্য দাবিগুলো পূরণে কিছু সময় লাগলেও নিরাপত্তা নিশ্চিতের জন্য সর্বোচ্চ চেষ্টা করবেন বলে আশ্বাস প্রদান করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *