সোমবার, জুন ২৪Dedicate To Right News
Shadow

জাতিসংঘের WSIS পুরস্কার-২০২৪ গ্রহণ করবেন প্রতিমন্ত্রী পলক

Spread the love

আন্তর্জাতিক অঙ্গনে তথ্য ও প্রযুক্তি খাতে জাতিসংঘের ওয়ার্ল্ড সামিট অন ইনফরমেশন সোসাইটি (ডব্লিউএসআইএস) পুরস্কার-২০২৪-এ উইনার পুরস্কার গ্রহণ করবেন প্রতিমন্ত্রী পলক। এই বছর Secure Video Conferencing System (BOITHOK) তৈরির জন্য Building confidence and security in use of ICTs ক্যাটেগরিতে উইনার ঘোষণা করা হয়েছে বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল-কে। ডব্লিউএসআইএস থেকে এক ই-মেইল বার্তায় এ তথ্য জানানো হয়।

আগামী ২৮মে ২০২৪ সুইজারল্যান্ডের জেনেভায় অনুষ্ঠিতব্য ফোরামে উইনার পুরস্কার গ্রহণ করবেন তিনি।

কোভিড ১৯ অতিমারী কর্তৃক সৃষ্ট চ্যালেঞ্জসমূহ মোকাবেলা করার জন্য বিসিসি উদ্ভাবন করে ‘বৈঠক’ নামক ভিডিও কনফারেন্সিং প্ল্যাটফর্ম। এখনও পর্যন্ত এই প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করে ২,৫০০+ মিটিং, সভা, সেমিনার, কর্মশালা, অনলাইন ক্লাস, ওয়েবইনার, নীতি নির্ধারণী আলোচনা সভা, প্রশিক্ষণ, চাকুরির ইন্টারভিউ প্রভৃতি সফলভাবে সম্পন্ন হয়েছে।

ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিলের এ অর্জনে অভিনন্দন জানিয়েছেন। প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার দূরদর্শী নেতৃত্বে এবং প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদের সার্বিক তত্ত্বাবধানে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগ ‘স্মার্ট বাংলাদেশ’ বিনির্মাণে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। জাতিসংঘের ‘ওয়ার্ল্ড সামিট অন ইনফরমেশন সোসাইটি অ্যাওয়ার্ড-২০২৪’-এর এ অ্যাওয়ার্ড ভবিষ্যতে বিভিন্ন সফল উদ্যোগ নিতে সবাইকে অনুপ্রাণিত করবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

এছাড়া এটুআই এর ‘শিক্ষক বাতায়ন’ ক্যাপাসিটি বিল্ডিং ক্যাটাগরিতে এবং ইউনিসেফ বাংলাদেশ এর Oky, the period tracker app for girls by girls ই-হেলথ্ ক্যাটাগরিতে ওয়ার্ল্ড WSIS সামিট অন ইনফরমেশন সোসাইটি (ডব্লিউএসআইএস) পুরস্কার-২০২৪এ চ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন করেছে।

বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে জমা দেওয়া ১০৪৯টি প্রকল্প/ উদ্যোগ থেকে বাছাই করে ৩৬০টি প্রকল্পকে ভোটাভুটির জন্য উন্মুক্ত করে দেওয়া হয়। এই বছর বাংলাদেশ থেকে সর্বমোট তিনটি প্রকল্প/উদ্যোগ পুরস্কারের জন্য নির্বাচিত হয়েছে, এর মধ্যে বিসিসি’র বিএনডিএ টিম কর্তৃক প্রস্তুতকৃত বৈঠক ভিডিও কনফারেন্সিং সিস্টেমটি ‘উইনার’ হিসেবে নির্বাচিত হয়েছে।

উল্লেখ্য, WSIS পুরস্কার নির্ধারণে প্রত্যেক ক্যাটাগরিতে একাধিক উদ্যোগ বা প্রজেক্টকে ভোটের মাধ্যমে চ্যাম্পিয়ন হিসেবে নির্বাচন করা হয়। তার মধ্যে থেকে একটিকে উইনার হিসেবে ঘোষণা করা হয়। এবছর ১৮ টি প্রজেক্টকে উইনার ও ৭২ টি প্রজেক্টকে চ্যাম্পিয়ন হিসেবে পুরস্কৃত করা হবে।

World Summit on the Information Society (WSIS) ফোরামের স্টেকহোল্ডারগণের অনুরোধে সৃষ্ট একটি আন্তর্জাতিক সম্মাননা হচ্ছে WSIS পুরষ্কার। WSIS ফোরাম মূলত United Nations এর অধীনস্থ বিশেষায়িত প্রতিষ্ঠান International Telecommunication Union (ITU) কর্তৃক পরিচালিত হয়। টেকসই উন্নয়নকে সামনে রেখে আইসিটি ব্যবহার করে যেসকল ব্যক্তি, সরকার, সুশীল সমাজ, স্থানীয়, আঞ্চলিক এবং আন্তর্জাতিক সংস্থা, গবেষণা প্রতিষ্ঠান, এবং বেসরকারী খাতের সংস্থাগুলি অবদান রেখে সাফল্য অর্জন করে চলেছে, তাদেঁর ভূমিকাকে মূল্যায়ন ও স্বীকৃতি দেওয়ার জন্য একটি কার্যকর পদ্ধতি তৈরি করাই WSIS পুরষ্কারের লক্ষ্য। আইসিটি সেক্টরের পুরস্কারগুলোর মধ্যে এটি অন্যতম। পৃথিবীর বিভিন্ন প্রান্ত থেকে প্রাপ্ত ভোট ও অন্যান্য বিষয়ের উপর ভিত্তি করে বিজয়ী নির্বাচন করা হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *